পৃথিবীর মঞ্চে বাংলাদেশি গবেষক

আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটি (ACS) হলো রসায়নের জন্য দুনিয়ার সবচেয়ে বড় সংগঠন। প্রায় দেড় শ বছর পুরোনো এই সংগঠন বছরে দুবার ন্যাশনাল মিটিং আয়োজন করে। যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থানে এই মিটিংগুলো অনুষ্ঠিত হয়। তাবৎ দুনিয়ায় রসায়নের যত শাখা আছে, সব শাখার নবীন-প্রবীণ গবেষকেরা এই সম্মেলনে আসেন। তাদের গবেষণা উপস্থাপন করেন। একে অপরের সঙ্গে নেটওয়ার্ক তৈরি করেন। গবেষণার প্রচুর আইডিয়া শেয়ার করেন। এক সপ্তাহ জুড়ে প্রায় ১০ হাজার গবেষকদের এক অতুলনীয় মিলনমেলায় জ্বলজ্বল করে সে সম্মেলন।

২০১২ সালে প্রথমবারের মতো এসিএস (ACS) কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করি। স্টকহোম থেকে এসেছিলাম সে বছর। তারপর অবশ্য সেখান থেকে আরও কয়েকটি সম্মেলনে আসি। প্রতিটি কনফারেন্সে আসার সময় একধরনের উদ্দীপনা কাজ করত। নানান দেশের বড় বড় গবেষকদের সঙ্গে যোগাযোগের সুযোগ হতো। দেখা মিলত নোবেল বিজয়ী বিজ্ঞানীদের। প্রাণশক্তি জাগানোর এক উৎস হয়ে থাকত এই সম্মেলনগুলো।
যতবার এসিএস কনফারেন্সে আসতাম, ততবারই তীক্ষ্ণ দৃষ্টি দিয়ে বাংলাদেশি ছেলেমেয়েদের খুঁজতাম। চারদিকে শুধু চীন-ভারতের ছেলেমেয়েদের চোখে পড়ত। বাংলাদেশের ছেলেমেয়েদের দেখা পেতাম না খুব। একধরনের হাহাকার ও শূন্যতা কাজ করত। দু-একজনের সঙ্গে দেখা হয়ে গেলে, একটা সীমাহীন আনন্দ লাগত।
এ মাসের ২০ থেকে ২৪ তারিখ পর্যন্ত ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হলো আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটির ২৫৪তম সম্মেলন। এ নিয়ে পাঁচটি সম্মেলনে অংশগ্রহণ করার সৌভাগ্য হয়েছে আমার। তবে এবারের সম্মেলন আমার কাছে সবচেয়ে আলাদা। এ বছরের সম্মেলন স্মরণে রাখার মতো। এ বছর খুঁজে খুঁজে প্রায় ১৫ জন বাংলাদেশি ছেলেমেয়ে পেয়ে গেলাম। এটা যে কত আনন্দের, সেটা বোঝানো যাবে না। এত বড় একটা সম্মেলনে বাংলাদেশের এতজন গবেষক অংশগ্রহণ করেছেন, সেটা যেনতেন কথা নয়। তাদের সবাই রসায়নের বিভিন্ন শাখায় গবেষণা করছেন। কেউ পিএইচডি করছেন। কেউ করছেন পোস্টডক। কেউ বা আবার গবেষণা করছেন ইন্ডাস্ট্রিতে। এই সম্মেলনে সবাই তাদের গবেষণাকর্ম উপস্থাপন করেছেন।
তাদের কেউ এসেছেন ফ্লোরিডা থেকে, কেউ এসেছেন আইওয়া থেকে, কেউ বা এসেছেন বোস্টন থেকে। বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করা এই ছেলেমেয়েগুলো বিদেশে গবেষণা করছেন। তাদের বেশির ভাগই, দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরা শিক্ষার্থী। কয়েকজনের কথা না বললেই নয়। মং সানো মারমা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক করেছেন। ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া থেকে পিএইচডি করে পোস্টডক করেছেন কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে। বর্তমানে তিনি গবেষণা করছেন ‘ডিএনএ’ নিয়ে। তিনি ছিলেন তাঁর ব্যাচের প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হওয়া ছাত্র। এমন আরও ছিলেন নাজমুল হোসেন, সাদিয়া আফরিন খান, রেজাউল করিম। তারা প্রত্যেকেই নিজেদের ব্যাচের ‘প্রথম শ্রেণিতে প্রথম’ হওয়া শিক্ষার্থী। জগৎময় দাস এসেছিলেন টরন্টো থেকে। এই মেধাবী গবেষক কাজ করছেন টরন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ে।
মাতৃভূমিতে উন্নত গবেষণার সুযোগ না থাকায় তাঁরা আজ উন্নত দেশে মেধার বিকাশ ঘটানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন। নিজ নিজ কাজের ক্ষেত্রে সফলতার স্বাক্ষর রাখছেন। তাদের প্রত্যেকের ভাবনায় আছে বাংলাদেশ। দেশের শিক্ষা ও গবেষণার দুরবস্থা তাদের বিচলিত করে। সম্মেলনে উপস্থিত বাংলাদেশি গবেষকেরা মিলে একটি আড্ডার আয়োজন করা হয়। আড্ডা শুরু হতে না হতেই দেশের বহু প্রসঙ্গ নিয়ে কথা হয়। দেশের তরুণদের আরও বেশি করে উদ্বুদ্ধ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন সবাই। এঁদের সবাই মনে করেন, দেশ থেকে প্রচুর সংখ্যক ছেলেমেয়ে যখন বিদেশে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার জন্য আসবে, তখন এর পজিটিভ একটা প্রভাব পড়বে সেখানে। উন্নয়নশীল দেশের ছেলেমেয়েদের মেধার বিকাশের জন্য উন্নত দেশে আসতেই হবে। চীন ও ভারত এভাবেই দাঁড়াচ্ছে। আমরাও পিছিয়ে থাকব না। তবে দেশের নীতিনির্ধারকদেরও হতে হবে বিবেকবান। দেশে গবেষণার পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজন মেধাবী ও যোগ্য শিক্ষক এবং অর্থ। বিশ্ববিদ্যালয়ে অযোগ্য শিক্ষক নিয়োগ দিয়ে কোনো দিন গবেষণার সংস্কৃতি গড়ে তোলা যায় না।
পৃথিবীর এত বড় এক মঞ্চে বাংলাদেশের মেধাবী গবেষকদের এমন উপস্থিতি ও মিলনমেলা, দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য হবে এক অনুপ্রেরণার উৎস। এই করি কামনা। অগ্রজদের দেখে তোমরা প্রস্তুত হও, দৃঢ় প্রত্যয়ে!

ড. রউফুল আলম: গবেষক, ইউনিভার্সিটি অব পেনসিলভানিয়া (UPenn), যুক্তরাষ্ট্র।
ইমেইল: <rauful.alam15@gmail.com>, ফেসবুক: <www.facebook.com/rauful15>

 

Share

বন্যার্তদের জন্য কানাডা প্রবাসী বাঙালিদের তহবিল সংগ্রহ

Next Story »

কানাডার ১৫০ তম জন্মদিন উপলক্ষে বিসিসিএস আর বর্ণাঢ্য আয়োজন

Leave a comment

LifeStyle

  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করবে জলপাই পাতা!

    10 hours ago

    জলপাই গাছ এক ধরণের চিরহরিৎ ফল । ভুমধ্যসাগরীয় অঞ্চল, এশিয়া, বাংলাদেশ ও আফ্রিকার কিছু অংশে এটা ভাল জন্মে। জলপাই গাছ ৮-১৫ মিটার লম্বা হয়ে থাকে। এর পাতা ...

    Read More
  • মুখের দুর্গন্ধ দূর করবে বেদানার খোসা

    11 hours ago

    মুখে গন্ধ হলে ধারে কাছে কেউই ঘেঁষতে চায় না। এমনকী মনের মানুষটাও যেন তখন দূরে দূরে থাকতে চায়! দুই বেলা দাঁত মেজেও কোনও সমাধান পাওয়া না গেলে, ...

    Read More
  • শীত সামলান ইচ্ছেমতো

    1 day ago

    ইচ্ছেমতো ফ্যাশন, এটাই যেন শীতের এক মজা। হুডি বা সোয়েটারে সহজে সামলে নিতে পারেন শীত। বেড়াতে গিয়েও ফুরফুরে থাকা যায়। হোক সে জঙ্গলে তাঁবুবাস বা রাতের বারবিকিউ—স্মার্ট ...

    Read More
  • শীতে চুলের যত্নে জেনে নিন

    2 days ago

    শীতকালে চুলের যত্নে অবহেলার কারণে ফাংগাল ইনফেকশন হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়। তাছাড়া, শীতকালে বাতাস শুষ্ক থাকার কারণে আমাদের চুলও শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে যায়। পাশাপাশি বাইরের ধুলাবালির ...

    Read More
  • চোখ ভালো রাখার ৫ উপায়

    2 days ago

    অফিসে কিংবা বাড়ি ফিরেও কম্পিউটারের সামনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা থাকেন। তারপর হাতের মুঠোয় ফোনটার দিকে চোখ তো রয়েছেই। এভাবেই ধীরে ধীরে আপনার চোখের অবস্থা খারাপ হচ্ছে। দুর্বল ...

    Read More
  • শুক্রাণু বাছাইয়ে বাড়বে গর্ভধারণের সম্ভাবনা!

    2 days ago

    আজাকাল অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, বেশ কয়েক বারের চেষ্টাতেও সন্তান ধারণ করতে সক্ষম হননা বহু নারী। এই সমস্যার সমাধানেই আবিষ্কৃত হয়েছে এমন একটি যন্ত্র- যা সবল শুক্রাণু ...

    Read More
  • এক সপ্তাহে ১০ কিলোগ্রাম ওজন ঝরাবে সেদ্ধ ডিম!

    2 days ago

    মেদ কমানোর জন্য অনেক কিছু করি আমরা। কখনও কঠিন ডায়েট, তো কখনও সকাল হলেই দৌড়, জিমে গিয়ে নানা ব্যায়াম। তবুও ফলাফল শূন্য। কোনও এক্সারসাইজ, কোনও ডায়েটই কাজে ...

    Read More
  • বালিশ ছাড়া ঘুমানোর উপকারিতা

    2 days ago

    শুধু রাতে ঘুমানোর জন্য নয়, ঘরের সৌন্দর্য বাড়াতেও বালিশের ভূমিকা অস্বীকার করার নয়। তবে চিকিৎসকরা বলছেন, হ্যাঁ, সৌন্দর্য বাড়াতে ব্যবহার করতেই পারেন, কিন্তু মাথার নিচে বালিশ গুঁজে ...

    Read More
  • গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা ও বমি ভাব দূর করবে দারচিনি

    2 days ago

    গা গুলানো বা বমি বমি ভাব হলেই প্রথমে আসে লেবু-পানির কথা। কিন্তু এই সমস্যার আরও ভাল একটি সমাধান রয়েছে। মাত্র একটু দারচিনিতেই এই সমস্যার সমাধান হতে পারে ...

    Read More
  • ক্যান্সার কোনো রোগ নয়, শব্দটি ‘মিথ্যা’

    2 days ago

    ক্যান্সার শব্দটি ‘মিথ্যা’ ছাড়া আর কিছু হতে পারে না। আধুনিক বিশ্বের ক্যান্সার শব্দটা এত বেশি ছড়িয়ে পড়েছে যে এটি বৃদ্ধ, তরুণ, শিশুসহ সবাইকে প্রভাবিত করেছে। কিছু শ্রেণি ...

    Read More
  • Read

    More